শ্রীমঙ্গলে আউশ ধানের বাম্পার ফলন’ কৃষকদের মুখে ফুটেছে হাসি

Spread the love

 

নূর মোহাম্মদ সাগর শ্রীমঙ্গল(মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি::

মৌলভীবাজার শ্রীমঙ্গলে আউশ ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। এতে কৃষকদের মুখে ফুটে উঠেছে আনন্দের হাসি। গত কয়েক দিন ধরে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আউশ ধান কাটা শুরু হয়েছে। এছাড়া চলছে রোপা আমন ধানের চারা রোপন। কৃষকরা একদিকে ধান কাটাছেন অন্যদিকে আমন ধানের চারা রোপন করা নিয়ে রীতিমতো ব্যস্ত সময় পার করছেন।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানা যায়, এবছর আউশের লক্ষমাত্রা নির্ধারন করার হয়েছিল ১২৮২০ হেক্টর জমিতে। কিন্তু যথাসময়ে বৃষ্টি না হওয়ায় আবাদ হয়েছে ৯৬১৫ হেক্টর জমি। এবার উপজেলার ১৭শ’ জন কৃষককে প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে আউশ চাষের জন্য। প্রত্যেক কৃষক ৫ কেজি বীজ ধান, ১০ কেজি বিওপি এবং ১০ কেজি এমওপি সার পেয়েছেন। আউশে ব্রি ধান-৪৮, ৮৩, ৮২,৮৫, বি আর ২৬,২৭,২৮ জাতের ধানের আবাদ হয়েছে। আউশ ফলন ভালো হয়েছে লক্ষমাত্রা চেয়ে আবাদ কম হলেও এবার ফলন ভালো তাই লক্ষমাত্রার কাঁছাকাঁছি উৎপাদন হবে বলে জানা যায়।
সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার আশিদ্রোন ইউনিয়নের কৃষকরা এক দিকে জমির পাকা ধান কর্তন করছেন, আবার অন্যদিকে রোপা আমন ধান রোপন করছেন। এক সাথে ধান কর্তন ও রোপন নিয়ে কৃষকরা ব্যস্ত হলেও আনন্দের কমতি ছিল না। ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে তারা এসব কাজ করছেন।

 

 


উপজেলার আশীদ্রোন গ্রামের কৃষক শাকির আহম্মেদ বলেন, এবছর আউশ ধানের চারা রোপন এর সময় বৃষ্টি কম ছিল। তাই ৪৫শতক জমিতে আউশ আবাদ করেছেন। ফসল ভালো হয়েছে। জমির ধান কাটা শুরু করেছেন। আশা করেন কেদার প্রতি ১৬-১৮ মন ধান পাওয়া যাবে বলে জানান।
সদর ইউনিয়নের ভাড়াউড়া গ্রামের কৃষক রফিক মিয়া বলেন, গত কয়েক বছর ধরে তিনি আউশ ধান আবাদ করে আসছেন। এবছর তিনি ৩ কেদার জমিতে আউশ ধান আবাদ করেছেন। ইতিমধ্যে তিনি ১ কেদার জমিতে ধান কেটেছেন। তার আউশ ধানের ফলন ভালো হয়েছে বলে জানান। ফলন ভালো হওয়ায় তিনি খুবই খুশি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিলুফার ইয়াসমিন মোনালিসা সুইটি বলেন, যথাসময়ে বৃষ্টি না হওয়ায় আউশ ধানের আবাদ লক্ষমাত্রা কিছুটা কম হয়েছে। তবে লক্ষমাত্রা তেকে আবাদ কম হলেও আউশ ভালো ফলন হয়েছে। ফলন ভালো হওয়ায় আশাকরি উৎপাদন লক্ষমাত্রার কাঁচাকাঁচি হবে। তিনি আরো বলেন, এ উপজেলার ১৭শ’ জন কৃষকের মাঝে আউশ আবাদের জন্য বীজ ও সার প্রণোদনা হিসেবে দেয়া হয়েছে। ফলন ভাল করতে কৃষকদেরকে সব রকমের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে বলে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *