হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও ‘পইলের সাব’ সৈয়দ অাহমদুল হক আর নেই

Spread the love

স্টাফ রিপোর্টার” শেখ জুয়েল রানা’

হবিগঞ্জ, ১৪ মার্চ ২০২০: হবিগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চারবারের চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমদুল হক ‘পইলের সাব’ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)। পইলের সাবের মৃত্যুতে এলাকা থেকে এক সালিশ বিচারকের জীবনাবসান হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টা ৩০ মিনিটে উপজেলার পইল গ্রামের সাহেব বাড়িতে বার্ধক্যজনিত কারনে ইন্তেকাল করেন তিনি। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে ও ১ মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন, গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
সৈয়দ আহমদুল হকের পারিবারিক সূত্র জানায়, তিনি বেশ কিছু দিন ধরে বার্ধক্যজনিত কারণে বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তাঁর উন্নত চিকিৎসা করানো হয়েছে।

শুক্রবার (১৩ মার্চ) বিকেল ৩টায় পইল ঈদগাহ মাঠে তাঁর জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাপন করা হয়।
এদিকে মাঝরাতে পইলের সাবেক মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার শুভাকাঙ্খিরা তার বাড়িতে ছুটে যান সা’ব বাড়িতে। এলাকার নারী-পুরুষসহ সকল বয়সী মানুষ কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ সময় সেখানে এক হৃদয় বিধারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়।

পইলের সাবের বড় ছেলে ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মঈনুল হক আরিফ জানান, তার বাবা ছিলেন সারা জেলাবাসীর এক পরিচিত মুখ। ন্যায় বিচারক ও গুণী মানুষ হিসেবে তিনি সর্বমহলের আস্থা অর্জন করেছেন। সালিশ বৈঠকে ন্যায় বিচারক হিসেবে তার অনন্য বিশেষ খ্যাতি রয়েছে।

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য, অারপি নিউজের সম্পাদক ও বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ অামিরুজ্জামান জানান, সৈয়দ আহমদুল হক ১৯৪৯ সালের ৩১ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার পইল গ্রামের সাহেব বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা সৈয়দ জাহেদুল হক ছিলেন পইল ইউনিয়নের বারবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান। শিক্ষাজীবনে সৈয়দ আহমদুল হক ১৯৬৮ সালে হবিগঞ্জ বৃন্দাবন সরকারি কলেজ থেকে বিকম ডিগ্রী লাভ করেন। এরপর কয়েক বছর একটি স্কুলে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন। পরে সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে চাকরিতে যোগদান করেন। একপর্যায়ে জনগণের চাহিদা ও দাবীর মূল্যায়ন করতে গিয়ে তিনি সরকারি চাকরি ছেড়ে নির্বাচন করে কয়েক টার্ম পইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। দীর্ঘ প্রায় ২৪ বছর তিনি সেখানে চেয়ারম্যান হিসেবে সততার সাথে দায়িত্ব পালন করে এক অনন্য নজির স্থাপন করেন। ১৯৮৫ সালে প্রথম সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচিত হন। এরপর সবক’টি উপজেলা নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হন। সেখানেও তিনি টানা চারবার উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

হাজারো অশ্রুসিক্ত নয়নে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন পইলের সাব সৈয়দ আহমদুল হক : পইল একটি প্রসিদ্ধ গ্রামের নাম। যেখানে জন্মেছিলেন বিপ্লবী বিপিন পালসহ অসংখ্য গুণীজন। তাদেরই মধ্যে একজন সৈয়দ আহমদুল হক (পইলের সাব)। যার আরো একটি সুখ্যাতি পরিচিতি হলো তিনি একজন সালিশ বিচারক এবং মাওলানা আব্দুল লতিফ ফুলতলী হুজুরের মেয়ের জামাতা।

পইল গ্রামের বিশাল ঈদগাহ মাঠে হাজার হাজার মুসল্লিদের অংশগ্রহণে জানাযা শেষে অশ্রুসিক্ত নয়নে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন একজন সালিশ বিচারক সৈয়দ আহমদুল হক।

বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে সাবেক চারবারের উপজেলা ও ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমদুল হককে।

এর আগে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে নিজ বাড়িতে বার্ধক্য জনিত কারনে ইন্তেকাল করেন তিনি।
সৈয়দ আহমদুল হক দুই ছেলে ও এক কন্যা সন্তানের জনক। বড় ছেলে সৈয়দ এজাজুল হক লন্ডন প্রবাসী এবং ছোট ছেলে সৈয়দ মঈনুল হক আরিফ পইল ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও একমাত্র মেয়ে বিবাহিত এবং গৃহিনী।

পইলের সাব শুধু জনপ্রতিনিধিই ছিলেন না, তিনি শিক্ষাজীবন শেষ করে শিক্ষকতা করেছেন কিছু দিন। সরকারি চাকরিও করেছেন। সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) জেলা কমিটির সভাপতি ছিলেন দীর্ঘদিন। এছাড়াও একাধারে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন।

জানাযার নামাজে উপস্থিত ছিলেন, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি, আব্দুল মজিদ খান এমপি, মোহাম্মদ শাহ নওয়াজ মিলাদ এমপি, সুপ্রিম কোর্টের সাবেক বিচারপতি সৈয়দ দস্তগীর হোসেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. মুশফিক হোসেন চৌধুরী, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা, কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ সাখাওয়াত হাসান জীবন, সমবায় বিষয়ক সম্পাদক জি কে গউছ, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলাম; বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য, অারপি নিউজের সম্পাদক ও বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ অামিরুজ্জামানসহ জেলার সকল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও হবিগঞ্জ জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারন সম্পাদক রুহুল হাসান শরীফ।

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও ‘পইলের সাব’ সৈয়দ অাহমদুল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য, অারপি নিউজের সম্পাদক ও বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ অামিরুজ্জামান।
হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও ‘পইলের সাব’ সৈয়দ অাহমদুল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক তাপস কুমার ঘোষ, শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সভাপতি দেওয়ান মাসুকুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক জালাল উদ্দিন এবং শ্রীমঙ্গল পৌর শাখার সভাপতি শেখ জুয়েল রানা ও সাধারণ সম্পাদক মো. রোহেল অাহমদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *