শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ঠেলে দেয়া সংগনিরোধ নীতির পরিপন্থি: জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশন

Spread the love

স্টাফ রিপোর্টার” শেখ জুয়েল রানা’

শেখ জুয়েল রানা, স্টাফ রিপোর্টার।।
ঢাকা, ০৬ এপ্রিল ২০২০: জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কামরূল আহসান ও সাধারণ সম্পাদক আমিরুল হক আমিন আজ এক বিবিৃতিতে গার্মেন্টস চালুর ঘোষণা দেয়ায় গ্রামে চলে যাওয়া শ্রমিকরা করোনা সংগনিরোধ নীতি ভঙ্গ করে দলে দলে পায়ে হেঁটে ঢাকা অভিমুখি হচ্ছেন, এই দৃশ্য দেশবাসীকে হতাশ ও ক্ষুদ্ধ করেছে।
বিবৃতিতে তারা বলেন, করোনা বিস্তার রোধে দেশে যখন একদিকে স্বাস্থ্য বিধি ঘোষণা করে জনগণকে সংগনিরোধ নীতি মেনে চলে ঘরে থাকার জন্য বলা হচ্ছে এবং সরকার ছুটি ১১ এপ্রিল ২০২০ পর্যন্ত বর্ধিত করেছে এবং পরিবহনও ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয়া হলো তখন গার্মেন্টস শ্রমিকদের কাজে যোগদানের পরিস্থিতি তৈরী করে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ঠেলে দেয়া সরকারেরর গৃহীত পদক্ষেপের পরিপন্থিই শুধু নয়, একশ্রেনীর মালিকদের বিকৃত মানসিকতারই উগ্র প্রকাশ।
বিবৃতি তারা বলেন, কাজে যোগদানের এই পরিস্থিতিতে শ্রমিকদের রাস্তায় নামার ঢল শুধু শ্রমিক নয় দেশবাসিকেও স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ফেলে দিলো। বিবৃতি তারা বলেন, একদিকে সরকার যৌথ বাহিনী দিয়ে রাস্তায় চলাচল সীমিত করার কথা বলছে তখন হাজার হাজার শ্রমিককে রাস্তায় বের হওয়ার সুযোগ করে দেয়া বালখিল্যতার শামীল। বিবৃতিতে আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী যেখানে রপ্তানীমুখি শিল্পের শ্রমিকদের বেতন-ভাতা পরিশোধে পাঁচ হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা দিয়েছে এবং বাংলাদেশ ব্যাংক শ্রমিকদের বেতন তার মোবাইল একাউন্টে পাঠানোর জন্য জানিয়েছে তখন বেতনের জন্য কাজে যোগদানে বাধ্য করা গৃহীত পদক্ষেপের পরিপন্থি।
বিবৃতিতে তারা বলেন, একদিকে বিজিইএমইএ-সভাপতি কারখানা ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ রাখার আহবান জানাচ্ছেন অন্যদিকে কারখানা পরিদর্শক, মালিক প্রতিনিধি, আইনশৃংখলা কর্তৃপক্ষ সমন্বয় বৈঠকে কারখানা খোলার সিদ্ধান্ত নেয়া পরস্পর বিরোধী। বিশেষ করে শিল্প-কারখানা পরিদর্শক কর্তৃপক্ষ কিসের ভিত্তিতে শ্রমিকদের কাজে যোগদানের সিদ্ধান্তে একমত হলেন তা বোধগম্য নয়। আমরা এ্ই পরিস্থিতিতে সরকারের নীতি নির্ধারকদের সমন্বয়ের অভাববোধ করছি। বিবৃতিতে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ঝুকিতে পড়ার পরিস্থিতি তৈরিতে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের আহ্বান জানান।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ দোলাচলে না ভুগে সকল খাতের শ্রমিক ও শ্রমজীবি মানুষদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও করোনা সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রির প্রতিশ্রুত সহায়তা বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্টতের প্রতি আহবান জানান।

চা বাগানের শ্রমিকদের মজুরী সমেত ছুটির ব্যবস্থা না করায় এবং গার্মেন্টস শ্রমিকদের কাজে যোগদানের পরিস্থিতি তৈরী করে জনগণকে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ঠেলে দেয়ার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য, অারপি নিউজের সম্পাদক ও বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ অামিরুজ্জামান ‘জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা ও করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবেলা জনিত সৃষ্ট পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত সহায়তা ও নির্দেশনা বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *