মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বরাবরে অভিনন্দন জানিয়ে খোলাচিঠি দিয়েছে শ্রীমঙ্গলের এক ব্যবসায়ী

Spread the love

শেখ জুয়েল রানা” স্টাফ রিপোর্টার’

শ্রীমঙ্গল, ০২ এপ্রিল ২০২০: মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বরাবরে অভিনন্দন জানিয়ে খোলাচিঠি দিয়েছে শ্রীমঙ্গলের এক ব্যবসায়ী।
ব্রাদার্স টেলিকম-এর প্রোপ্রাইটর কামরুল হাসান জুয়েল তার ব্যক্তিগত আইডি ফেসবুক পেইজে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে এই খোলাচিঠিটি পোস্ট করেন।
২ এপ্রিল ২০২০ পোস্ট করা খোলাচিঠিটি নিম্নে হুবহু তুলে ধরা হলো:
বরাবর,
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
ঢাকা

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আসসালামু আলাইকুম। আপনি বর্তমান সময়ে বিশ্বের সবচেয়ে বিচক্ষণ প্রধানমন্ত্রী। সারা বিশ্ব যখন করোনার ভয়াল ছোবলে লাশ গণনায় ব্যস্ত। ঠিক তখনি আপনার বিচক্ষণ নেতৃত্বে আমরা অন্যান্য দেশগুলোর থেকে অনেক সুবিধাজনক অবস্থায় থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে স্বস্তিতে আছি। যা আপনার সঠিক নির্দেশনা ও সিদ্ধান্তের জন্য সম্ভব হয়েছে বলে আমরা মনে করি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আপনি দয়ালু ও অত্যন্ত মানবিক, যে কারণে আপনি ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ উপাধিতে ভূষিত হয়েছেন। আমরা বিশ্বাস করি যে, আপনি যখনই যে পদক্ষেপ নেন, তা জনগণের কল্যানেই নেন। আপনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে দেশ অাজ অনেকদূর এগিয়েছে। অাপনার সুযোগ্য নেতৃত্বেই দেশ ২০৪১-এর মধ্যে আধুনিক ও উন্নত বিশ্বের কাতারে উন্নীত হতে যাচ্ছে, ইনশাআল্লাহ।

জাতি হিসেবে বিশ্বে আজ আমাদের অবস্হান অনেক উপরে। ‘৭১-এর রক্তক্ষয়ী সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত স্বাধীনতার কারণে বাঙালি আজ জাতি হিসেবে অনেক উচ্চতায় অামরা গর্ববোধ করি। যা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুমহান নেতৃত্বে ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তদান, ২ লক্ষ মা বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে ও জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের সশস্ত্র সংগ্রাম এবং জনগণের দুঃখ কষ্ট ও আত্নত্যাগের বিনিময়ে সম্ভব হয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
দেশ আজ এক ভয়াবহ অবস্হার সম্মুখীন। এর মধ্যে পোষাক শিল্পে আপনার ২% সুদে ঋণ প্রণোদনার মাধ্যমে পোশাক শিল্পকে অনেক উচ্চ স্হানে নিয়ে যাবে। এই জন্য অাপনাকে অজস্র ধন্যবাদ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
এপ্রিল মাস থেকে এক সংখ্যায় সকল ব্যাংকের সুদ কমিয়ে আনার জন্য যে সার্কুলার জারি হয়েছিল, তা সম্ভবত এখনও কার্যকর করেনি ব্যাংকগুলো। যা নিয়ে আমরা সাধারণ ব্যবসায়ীরা অত্যন্ত চিন্তিত।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
দেশের স্বার্থে আমরা ব্যবসায়ীরা সব ধরনের ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত।কিন্তু বর্তমান সময়ে করোনার কারনে খোলা বাজার, নিত্যপ্রয়োজনীয় ও ঔষধের দোকান ব্যতিত প্রায় সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। এর মধ্যে আপনি ইতিমধ্যে ব্যাংক ও এনজিও সমিতি সহ বিভিন্ন ফাইনান্স কোম্পানির কিস্তি বন্ধ করেছেন তার জন্যও আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
কিন্তু আমরা যারা মধ্যবিত্ত ব্যবসায়ী আছি তারা কাউকে লজ্জায় আমাদের বর্তমান অবস্হার কথা কাউকে বলতে পারি না।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আমরা গত ২৪শে মার্চ থেকে আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। যাহা আমাদের কল্যানের জন্যই করা হয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আপনি দয়ালু ও অত্যন্ত মানবিক, তাই আমাদের কষ্ট আপনাকে বলা। অামাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকা সত্বেও মানবিক দিক বিবেচনায় দোকান সহকারীদের বেতন চালু রাখতে হবে। তাছাড়া আমরা যারা ব্যাংক থেকে সি,সি লোন নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করি, তাদের ব্যবসা বন্ধ থাকা সত্বেও ডে বাই ডে প্রতিদিনের ব্যাংক ইন্টারেস্ট আমাদের হিসেবে যোগ হচ্ছে। তাছাড়া দোকান ভাড়া, দোকান বিদ্যুৎ বিল, পৌরসভা ট্রেড লাইসেন্স, ইয়ারলি ইনকাম ট্যাক্স রাত্রিকালীন নাইটগার্ড বেতন, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা কর্মীর বেতন সহ অনেক খরচাদি আমাদের চালু রাখতে হবে। তাছাড়া মধ্যবিত্ত অধিকাংশ ব্যবসায়ীর বাসা ভাড়া ও একটা খরার উপর মরার ঘা বটে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
এমতাবস্হায় আপনি যদি দেশের উন্নয়নের স্বার্থে আমাদের কথা চিন্তা করে, আমাদের দোকান কোঠা বাসা ভাড়া মওকুফ করে নির্দেশ দেন তাহলে জাতি হিসেবে আমরা আপনার কাছে চির কৃতজ্ঞ থাকব।
তাছাড়া আমাদের এই দূর্যোগকালীন সময়ে ব্যাংক এনজিও সহ সকল সুদ মওকুফ করে। মধ্যবিত্ত ব্যবসায়ীদের সহজ শর্তে সরকারি উদ্যোগে ঋণদান করলে আমরা ব্যবসায়ীরা হয়ত দেশের উন্নয়নে আবার ভূমিকা রাখতে পারব।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আপনি আমাদের মাতৃ সমতুল্য, তাই আমাদের সব চাওয়াই আপনার নিকট।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আমি অত্যন্ত ক্ষুদ্র জ্ঞান সম্পন্ন সাধারণ ব্যবসায়ী। পত্রের কোথাও ভাষাজনিত কোন ভূল থাকলে আপনি আপনার নিজ গুনে ক্ষমা করে দিবেন। আপনাকে অভিবাদন।

বিনীত নিবেদক

কামরুল হাসান জুয়েল
ব্রাদার্স টেলিকম
শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *