ডাক পিয়ন পংকি মিয়ার খবর আর কেউ নেয় না, দোয়ার দরখাস্ত

Spread the love

মাহবুব আলম জলিল, জুড়ী : 
একসময় চিঠির ব্যাগ কাঁদে ঝুঁলিয়ে প্রাপকের খুঁজে কখনও বাইসাইকেল কখনও আবার পায়েহেঁটে চষে বেড়িয়েছেন মাইলের পর মাইল। এলাকায় এক নামেই সবাই তাকে চেনেন পিয়ন হিসেবে। সে মানুষটির আজ বার্ধক্যজনিত কারণে শারীরিক শক্তি হারিয়ে বিছানায় শোয়ে বসে দিন কাটছে চার দেয়ালের ভেতর।

বলছিলাম মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলার পশ্চিমজুড়ী ইউনিয়নের উত্তর বাছিরপুর গ্রামের সাবেক মেইল পিয়ন পংকি মিয়ার কথা। তিনি ১৯৫৪ সালে কুলাউড়া উপজেলার বরমচালে একটি সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। বাবা ছিলেন তৎকালিন সময়ের পোষ্ট অফিসের একজন কর্মকর্তা।
বাবার চাকুরীর সুত্রধরে তিনি ১৯৬৯ সালে মেইল পিয়ন পদে চাকুরী জীবন শুরু করেন। তাঁর চাকুরীর প্রথম পোষ্টিং ছিল, সিলেট সদরের একটি পোষ্ট অফিসে।
সিলেট হতে বরমচাল,কুলাউড়া, বড়লেখা , জুড়ী সর্বশেষ ফেঞ্চুগঞ্জে টানা ১৭ বছর চাকুরী করে ২০১১ সালের জুন মাসে চাকুরীর মেয়াদ শেষ হওয়ায় তিনি অবসরে যান। সেই সঙ্গে শেষ হয় তাঁহার চাকুরী জীবনের ৪২ বছরের সোনালী অধ্যায়।

পংকি মিয়ার পৈত্রিক বাড়ী বরমচাল ইউনিয়নে হলেও বিবাহ সুত্রে তিনি ১৯৮০ সালে উত্তর বাছিরপুর গ্রামে স্থায়ীভাবে বসতি গড়েন। তাঁর তিন ছেলে ও তিন মেয়ে সবাইকে তিনি লেখাপড়া করিয়ে প্রতিষ্টিত করেছেন। পারিবারিকভাবে পংকি মিয়া সুখী হলেও শারীরিক নানান সমস্যায় তিনি তেমন ভালো নেই। তাই তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন। মহান আল্লাহপাক যেন তাঁকে সুস্থ্যতার নেয়ামত নসীব করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *