করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে চা-শ্রমিকদের জন্য একাই রাস্তায় দাঁড়ালেন মোহন রবিদাস

Spread the love

স্টাফ রিপোর্টার” শেখ জুয়েল রানা’

শমশেরনগর (মৌলভীবাজার), ২৭ মার্চ ২০২০ : করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে চা শ্রমিকদের প্রতি সরকার ও চা কোম্পানি কর্তৃপক্ষের অবহেলার অভিযোগ এনে এর প্রতিবাদে শুক্রবার সকাল থেকে শমশেরনগর বাজার চৌমুহনায় অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন শমশেরনগর চা বাগানের শ্রমিকের কৃতি সন্তান মোহন রবিদাস।

তার দাবীর সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেছেন বাবুল মাদ্রাজি, সুজন লোহার, মনিসংকর রায়, উত্তম রবিদাস, রাজকুমার রবিদাসহ ওই বাগানের সব ছাত্র যুবক ও চা শ্রমিকরা। তবে জনসমাগম এড়াতে মোহন রবিদাস ব্যতিক্রমী পন্থায় এ প্রতিবাদ জানান।

মোহন রবিদাস দাবি করেছেন, করোনা ভাইরাসে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে আছে দেশের চা শ্রমিকরা। তিনি বলেন, ‘একজন সাদা তামাকপাতা হাতের তালুতে রেখে মললে তার কাছ থেকে নিয়ে আরও পাঁচ জনে খায়, মদের গ্লাসগুলো ধোঁয়া হয় না, সাধারণত কাপড় দিয়ে মুছে দেয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘যেখানে চা-পাতা তোলা হয় সেখানে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, সাবান তো দূরের কথা খাবার পানিই থাকে না। এক ঝর্ণার পানি ১০ জনে খায়। লাইনগুলাতে ঘন বসতি বেশি। ঘরগুলো এক্কেবারে কাছাকাছি। একই নদীতে অনেক মানুষ গোছল করে। চা বাগানের গ্রুপ হাসপাতালগুলোর (ক্যামেলিয়া, কালিঘাট) দিকে তাকালে গায়ে জ্বর আসে। ডাক্তার ও নার্সদের গায়ে পিপিই নেই। প্রবাসীরা স্বাচ্ছন্দ্যে আনাগোনা করছে। চিকিৎসা নিচ্ছে।’

এসব বিষয়ে সরকার বা চা কোম্পানি কেউই কোন বাস্তবধর্মী পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ করেন মোহন রবিদাস।

তিনি বলেন, ‘সরকার সব সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ করেছে। কিন্তু চা বাগানগুলো বন্ধে কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি। উপরন্তু শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় পরিপত্র জারি করে জানিয়ে দিয়েছে, চা-বাগানগুলো সেই সাধারণ ১০ দিন ছুটির আওতায় পড়বে না।’

‘এটা একটা অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত ও চা-শ্রমিকদের প্রতি সরকারের অবহেলা’ বলে মন্তব্য করেন মোহন।

আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সব চা বাগানে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা অর্থাৎ পর্যাপ্ত মাস্ক, সাবান-স্যানিটাইজার, সুরক্ষা সরঞ্জামের ব্যবস্থা করা, মজুরি ও রেশন ইত্যাদিসহ বন্ধ ঘোষণা না করলে আরও কঠোর কর্মসূচী হাতে নিবেন বলেও জানান তিনি।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশের সব চা বাগান বন্ধ ঘোষণার দাবী প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে আমাদের প্রতিনিধিকে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য, আরপি নিউজের সম্পাদক ও বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ আমিরুজ্জামান এই দাবীর প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করে বলেন, ‘চা শিল্পের জন্য প্রণোদনা তহবিলের সৃষ্টি করে সরকারীভাবে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ দিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ, বিশেষ করে পর্যাপ্ত মাস্ক, সাবান- হ্যান্ড স্যানিটাইজার, জীবাণুনাশক স্প্রে, সুরক্ষা সরঞ্জামের ব্যবস্থা করা, মজুরি ও রেশন ইত্যাদিসহ আপদকালীন সহায়তা প্রদান করতে হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *