ইসহাক কাজল সমাজ পরিবর্তনের জন্য আন্দোলন করে গেছেন : মেনন

Spread the love

স্টাফ রিপোর্টার” শেখ জুয়েল রানা’

সিলেট, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০:  ইসহাক কাজল একজন সাংবাদিক রাজনীতিবিদ হিসেবে আজীবন এদেশের শ্রমজীবি মানুষের মুক্তির জন্য সংগ্রাম করে গেছেন। সাংবাদিকতা ও রাজনীতি দুই সত্তায় তিনি একজন সফল মানুষও ছিলেন। শোষিত, গরীব অসহায় শ্রমজীবি মানুষের জন্য এবং সমাজ পরিবর্তনের জন্য তিনি কথা বলেছেন।
২৫ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার বিকেলে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক কমরেড ইসহাক কাজলের নাগরিক শোক সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পাটির কেন্দ্রীয় সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপি এসব কথা বলেন।
রাশেদ খান মেনন বলেন, আজকের শোকসভায় এসে ইসহাক কাজলকে আমি আবার নতুন করে আবিষ্কার করলাম। তার বর্ণাঢ্য জীবনের গল্প শুনে অনুপ্রাণিত হলাম। সিলেটে হকার্স সমিতি, রিকসা শ্রমিক, চা শ্রমিকদের সংগঠিত করে তাদের অধিকার আদায়ে লড়াই করে ইসহাক কাজল তাদের অন্তরে স্থান করে নিয়েছেন। কমিউনিষ্ট আন্দোলন যখন রুদ্ধ হয়ে গিয়েছিল তখন তিনি ওয়ার্কার্স পার্টির সাথে সম্পৃক্ত হয়ে বাম রাজনীতিকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। এরশাদ বিরোধী আন্দোলন করেছেন। রাজনীতিবিদরা যেখানে চা শ্রমিকদের ভোট ব্যাংক হিসেবে ব্যবহার করেন, ইসহাক কাজল সেখানে তাদের মুক্তির জন্য কথা বলেন।
শোকসভা উদযাপন কমিটির আহবায়ক ও গণতন্ত্রী পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতি ব্যারিষ্টার আরশ আলীর সভাপতিত্বে ও ওয়ার্কার্স পার্টির সিলেট জেলা শাখার সম্পাদক ইন্দ্রাসী সেন সম্পার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ আলোচকের বক্তব্য রাখেন প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান খান।
শুরুতে ইসহাক কাজলের জীবনী পাঠ করেন শোক সভা উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ওয়ার্কাস পার্টির সিলেট জেলা সভাপতি কমরেড সিকন্দর আলী।
বক্তব্য রাখেন জাসদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক ও সিলেট জেলা সভাপতি লোকমান আহমদ, সিনিয়র সাংবাদিক ইকবাল সিদ্দিকী, দৈনিক জালালাবাদ সম্পাদক মুকতাবিস উন নূর, সিলেট জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি এ টি এম ফয়েজ, গণফোরামের সিলেট জেলা সভাপতি এডভোকেট আনসার খান, সাম্যবাদী দলের সিলেট জেলা সভাপতি কমরেড ধীরেন সিংহ, সিনিয়র সাংবাদিক আ. ফ.ম সাঈদ, মৌলভীবাজার জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাবেক সম্পাদক আব্দুল হান্নান চিনু, কাজল ইসহাকের ভাই স্কুল শিক্ষক টিকুল আলী, জেলা গণতন্ত্রী পার্টির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি প্রকৌশলী আইয়ুব আলী, ন্যাপ সিলেট জেলার সম্পাদক এম এ মতিন, সিসিকের ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদ, কমিউনিস্ট পার্টির সিলেট জেলা সভাপতি এড. আনোয়ার হোসেন, দৈনিক সিলেটের ডাক’র সিনিয়র রিপোর্টার এম আহমদ আলী, সিলেট মহানগর সংবাদপত্র হকার্স সমিতির সভাপতি আব্দুস সালাম, বাসদের জেলা নেতা এড. হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী, উদীচী শিল্পী গোষ্টি সিলেটের সভাপতি এনায়েত হোসেন মালিক, চা শ্রমিক নেতা নিকেশ মণি, সংবাদপত্র হকার্স শ্রমিক নেতা আব্দুস সাত্তার, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট সিলেটের সভাপতি আমিনুল ইসলাম চৌধুরী লিটন প্রমুখ।
শোক সভার শুরুতে ইসহাক কাজলের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান অতিথিবৃন্দ এবং ১ মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করেন।

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য, আরপি নিউজের প্রধান সম্পাদক ও বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ আমিরুজ্জামান জানান, “বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা শাখার সাবেক সম্পাদক, ‘৭১-এর বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বরেণ্য সাংবাদিক, বাংলা একাডেমি সম্মাননা ও পুরস্কারপ্রাপ্ত লেখক এবং একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি যুক্তরাজ্য শাখার সভাপতি কমরেড ইসহাক কাজল ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ সোমবার লন্ডন সময় বিকেল ৫টা ২৫ মিনিটে গ্রেটার লন্ডনের কুইন্স হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ৭১ বছর বয়সে চিরবিদায় নিলেন কমরেড ইসহাক কাজল। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও ছেলে, মেয়ে, নাতি নাতনী, আত্মীয়-স্বজন এবং রাজনৈতিক ও সাংবাদিকতা অঙ্গনের সহকর্মীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
২০০০ সাল থেকে পরিবার নিয়ে লন্ডনে স্থায়ীভাবে বসবাসরত ইসহাক কাজল দীর্ঘদিন ধরে মরণব্যাধি ক্যান্সারের সাথে লড়ছিলেন। চার বছরেরও বেশি সময় ক্যান্সারে ভুগে চলে গেলেন এই মুক্তিযোদ্ধা।
১৯৪৮ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি বৃহত্তর সিলেটের মৌলভীবাজার জেলার কমলগন্জ উপজেলার পতনউষার ইউনিয়নের ব্রাহ্মণঊষার গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। পতনউষার বালক প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা, নয়াবাজার কৃষ্ণচন্দ্র উচ্চবিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও সিলেট মদনমোহন কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক ও স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।
রাজনৈতিক জীবনের সূচনায় ছাত্রলীগের সদস্য থাকাকালীন ‘৬২-এর শিক্ষার আন্দোলন, ৬৬র ৬ দফা ও ‘৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানসহ বাঙালির স্বাধীকার আন্দোলনের প্রতিটি পর্বে অংশ নেন ইসহাক কাজল। ১৯৭১ সালে দেশকে শত্রুমুক্ত করতে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে শত্রুর খোঁজে রণাঙ্গনে বিরামহীন সাড়ে নয় মাস অতিবাহিত করেন। যুদ্ধপরবর্তী সময়ে ইসহাক কাজল উপলব্দি করেন, ভৌগলিক স্বাধীনতা এসেছে কিন্তু শ্রমজীবী মানুষের সামগ্রিক মুক্তি আসেনি। এ উপলব্দি তাকে আবারো মাটি ও মানুষের কাছে নিয়ে যায়। স্বাধীনতার পর তিনি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন।
‘৭৫-এর ১৫ আগস্ট জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু হত্যার পর পুলিশী হয়রানীর শিকার হয়ে দীর্ঘদিন আত্মগোপনে থাকতে হয় ইসহাক কাজলকে। পরিণামে শিক্ষকতার চাকরিটিও হারাতে হয়েছে।
পরবর্তীতে শ্রমজীবী মানুষের সামগ্রিক মুক্তির আকাঙ্ক্ষায় ওয়ার্কার্স পার্টিতে যোগ দেন ইসহাক কাজল। ১৯৭৬ সালে সেনা শাসক জিয়াউর রহমানের শাসনামলে এক মাস ৭ দিন কারাবরণ করেন তিনি। এরশাদবিরোধী আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়ার কারণেও একাধিক মামলার সম্মুখীন হয়ে দেশত্যাগ করে চার বছর কুয়েতে কাটাতে হয়েছে তাকে। এরপর ২০০০ সালের ২১ এপ্রিল যুক্তরাজ্যে চলে আসেন ইসহাক কাজল।
এই বীর মুক্তিযোদ্ধা একজন লেখক ও সাংবাদিক হিসেবেই বেশ সুপরিচিত। তিনি দৈনিক খোলাচিঠি’র বার্তা সম্পাদক, দৈনিক মৌলভীবাজার বার্তা’র নির্বাহী সম্পাদক, দৈনিক বাংলাবাজার পত্রিকার শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ প্রতিনিধি, সিলেট ডাইজেস্ট-এর অনিয়মিত সম্পাদনা সহ সাংবাদিক সমিতি শ্রীমঙ্গল ইউনিট ও কমলগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন।
বাংলা একাডেমী পুরস্কারপ্রাপ্ত এ লেখকের লিখিত ও সম্পাদিত গ্রন্থের সংখ্যা প্রায় ২১টি। সিলেট প্রেসক্লাব ও লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাব নির্বাহী কমিটিতেও বিভিন্ন সময় দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। ১৯৮৫-৮৬ সালে সিলেট প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও পরবর্তীতে লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবে তিন মেয়াদে নির্বাচিত তথ্য ও গবেষণা এবং এক মেয়াদে প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ব্রিটেনের প্রাচীনতম বাংলা সাপ্তাহিক জনমতের পলিটিক্যাল এডিটর এবং যুক্তরাজ্য ওয়াকার্স পার্টির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন ইসহাক কাজল। পাশাপাশি যুক্তরাজ্য একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সম্মানিত সভাপতি হিসেবেও ছিলেন অধিষ্ঠিত।
বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে ইসহাক কাজল সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক, জেলা শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি, জেলা সংবাদপত্র হকার ইউনিয়ন ও সমবায় সমিতির সভাপতি, বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সিলেট জেলা শাখার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও বাংলাদেশের তেল-গ্যাস ও খনিজ সম্পদ রক্ষা আন্দোলনের জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি। সিলেট বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আন্দোলন, সিমিটার-বিরোধী আন্দোলন, মধুবন-বিরোধী আন্দোলন, সিলেট বিভাগ আন্দোলন, মাগুরছড়া গ্যাস বিস্ফোরণের ক্ষতিপূরণ আদায়ের আন্দোলনসহ জাতীয় সম্পদ রক্ষার আন্দোলনেও সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন বীর এই মুক্তিযোদ্ধা।
মোহাম্মদ নবাব উদ্দিন ও ফারুক অাহমদ সম্পাদিত ইসহাক কাজলের বর্ণাঢ্য জীবনী গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে।”
বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা শাখার সাবেক সম্পাদক, ‘৭১-এর বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বরেণ্য সাংবাদিক এবং লেখক কমরেড ইসহাক কাজলের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপি ও সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি।
বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বরেণ্য সাংবাদিক এবং লেখক  ইসহাক কাজলের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন সরকারি অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি উপাধ্যক্ষ ড. মো. আব্দুস শহীদ এমপি।
‘৭১-এর বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বরেণ্য সাংবাদিক এবং লেখক কমরেড ইসহাক কাজলের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য, আরপি নিউজের প্রধান সম্পাদক ও বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ আমিরুজ্জামান।
বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বরেণ্য সাংবাদিক এবং লেখক কমরেড ইসহাক কাজলের মৃত্যুতে অারও শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক তাপস কুমার ঘোষ, শ্রীমঙ্গল পৌর শাখার সভাপতি শেখ জুয়েল রানা ও সাধারণ সম্পাদক মো. রোহেল আহমদ এবং শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সভাপতি দেওয়ান মাসুকুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক জালাল উদ্দিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *